মাতৃভাষা বাংলায় ট্রিপল ই ইঞ্জিনিয়ারিং

ব্যাটারি চার্জিং (Charging of Battery)

সেকেন্ডারী সেলের শক্তি শেষ হয়ে গেলে একে পুনরায় কর্মক্ষম করা যায়। এজন্য একে ডি.সি. তে চার্জ দিতে হয়। আমাদের দেশে বিদ্যুৎ সাপ্লাই ব্যাবস্থা এ.সি., তাই চার্জারের সাহায্যে এ.সি. বিদ্যুৎকে প্রয়োজনীয় ডি.সি. তে রূপান্তর করে ব্যাটারি চার্জ দেয়া হয়।  

ব্যাটারি চার্জিং পদ্ধতিঃ

  • ১. কনস্ট্যান্ট কারেন্ট চার্জিং পদ্ধতি (Constant Current Charging Method)
  • ২. কনস্ট্যান্ট পটেনশিয়াল চার্জিং পদ্ধতি (Constant Potential Charging Method)
  • ৩. মডিফাইড কনস্ট্যান্ট পটেনশিয়াল চার্জিং পদ্ধতি (Modified Constant Potential Charging Method)

আপনি আরো পড়তে পারেন

ইন্টিগ্রেটর সার্কিট

যে ইলেকট্রনিক্স সার্কিটের আউটপুট ভোল্টেজ, ইনপুট ভোল্টেজের ইন্টিগ্রাল মানের সমানুপাতিক তাকে ইন্টিগ্রেটর সার্কিট বলে। (আউটপুট ভোল্টেজ) α ʃ (ইনপুট ভোল্টেজ) অথবা যেসব RC  সার্কিটের ক্যাপাসিটরের

SCR ল্যাচিং (SCR Latching)

ট্রিগারিং এর মাধ্যমে SCR অফ অবস্থা হতে অন অবস্থায় গেলে কারেন্টের মান অনেক বেড়ে যায়, এই অবস্থাকে ল্যাচিং বলে।

গ্যাসিং পয়েন্ট (Gassing Point)

ব্যাটারি চার্জিং এ, চার্জিং এর এক সময় সেলের মধ্যে প্রচুর গ্যাস উৎপন্ন হয়, ইলেকট্রলাইটে অক্সিজেন ও হাইড্রোজেন গ্যাসের বুদ-বুদ সৃষ্টি হয় এবং ইলেকট্রলাইটের আপেক্ষিক গুরুত্ব কমিয়ে দেয়,

কনস্ট্যান্ট কারেন্ট চার্জিং পদ্ধতি (Constant Current Charging Method)

এই পদ্ধতিতে ব্যাটারি চার্জের সময় কারেন্টকে নির্দিষ্ট মানে স্থির রাখা হয়। চার্জিং কারেন্ট, সরবরাহ ভোল্টেজ ও ব্যাটারির ভোল্টেজের সমানুপাতিক। এই পদ্ধতিতে চার্জিং এ বেশী সময়

অনুসন্ধান করুন